আজ- বুধবার, ২৩শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

উহানের ল্যাব কর্মীদের মেডিকেল রেকর্ড প্রকাশের আহ্বান ফাউচির


।। ডেস্ক রিপোর্ট।।

যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ড. অ্যান্থনি ফাউচি উহানের ল্যাব কর্মীদের মেডিকেল রেকর্ড প্রকাশে আহ্বান জানিয়েছেনে বলে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। বৃহস্পতিবার ফাইন্যান্সিয়াল টাইমসের এক প্রতিবেদনে তার এ মন্তব্য এসেছে বলে জানায় এই বার্তা সংস্থা।

প্রতিবেদনে বলা হয়, চীনের উহানের ভাইরোলজি ইনস্টিটিউটের ৩ গবেষক ও কয়েক বছর আগে একটি বাদুড়ের গুহায় প্রবেশ করা ৬ খনি শ্রমিকের মেডিকেল রেকর্ড প্রকাশে বেইজিংয়ের প্রতি আহ্বান জানান ফাউচি।

করোনা উহানের ল্যাব থেকেই প্রথম ছড়িয়েছিল কিনা, ওই ৯ জনের অসুস্থতার ধরন ও সংশ্লিষ্ট তথ্য সে রহস্যের সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ সূত্র দিতে পারে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

ফাউসি বলেন, ২০১৯ সালে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন বলে খবর বের হওয়া ৩ জনের (ভাইরোলজি ইনস্টিটিউটের গবেষক) মেডিকেল রেকর্ড দেখতে চাই আমি। তারা কি সত্যিই অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন, আর যদি তাই হয়, তাহলে কীভাবে অসুস্থ হন?,

চীনের উহানেই ডিসেম্বরে প্রথম করোনা শনাক্ত হয়েছিল। তার মাসখানেক আগে শহরটিতে অবস্থিত ভাইরোলজি ল্যাবের তিন গবেষক গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন বলে সম্প্রতি যে খবর চাউর হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এখন তা খতিয়ে দেখছে।

ফাউচি কেবল এ ৩ জনের মেডিকেল রেকর্ড চাননি, তিনি ২০১২ সালে চীনের একটি বাদুড়ের গুহায় প্রবেশ করার পর অসুস্থ হয়ে পড়া ৬ খনি শ্রমিকের অসুস্থতা সংক্রান্ত তথ্যও চেয়েছেন। ওই ৬ শ্রমিকের ৩ জন পরে মারা যান।

খনি শ্রমিকরা যে গুহাটিতে প্রবেশের পর অসুস্থ হয়ে পড়েন, উহান ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজির বিজ্ঞানীরাও বাদুড়ের কাছ থেকে নমুনা সংগ্রহে প্রায়ই সেখানে যেতেন। উহানের ল্যাব থেকেই প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ছড়িয়েছে- এ সংক্রান্ত দাবিকে ‘ষড়যন্ত্র তত্ত্ব’অ্যাখ্যা দিয়ে চীনা বিজ্ঞানী ও কর্মকর্তারা প্রথম থেকেই তা প্রত্যাখ্যান করে এসেছেন।

তাদের ভাষ্য, উহানে আঘাত হানার আগে ভাইরাসটি সম্ভবত বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলও প্রদক্ষিণ করেছে। আমদানিকৃত হিমায়িত খাদ্যের চালান কিংবা বন্যপ্রাণী কেনা-বেচা সংক্রান্ত ব্যবসার মাধ্যমে এটি চীনে প্রবেশ করে থাকতে পারে বলেও অনুমান তাদের।

ডেইলি/ এস


এই রকম আরও খবর

সর্বশেষ খবর

বিশেষ খবর